ঢাবিতে মারধর-যৌন হয়রানির অভিযোগে ১২ ছাত্র বহিষ্কার

প্রকাশিত

ঢাবি প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে মারধর ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বান্ধবী নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের কারণে ১২ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার (১ মার্চ) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের পরিচালক ড. নূর-ই-ইসলাম প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বহিষ্কারের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়।

এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে জানালে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২৭ ফেব্রুয়ারির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

দুই বছরের জন্য বহিষ্কৃতরা হলেন- সামিউল ইসলাম সামি (সমাজবিজ্ঞান দ্বিতীয় বর্ষ), আহসান উল্লাহ (দর্শন, দ্বিতীয় বর্ষ), মো.রুহুল আমিন বেপারী (সাংবাদিকতা বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ), মো. মেহেদী হাসান হিমেল (উর্দু বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ) ও ফারদিন আহমেদ (লোকপ্রশাসন বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ)।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার রাতে সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে অবস্থানরত দুর্যোগবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র এহসান রফিককে মারামারিতে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গ, অছাত্রসুলভ আচরণ ও শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ বিঘ্ন করার কাজে লিপ্ত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদের মধ্যে হামলায় জড়িত মো. ওমর ফারুককে (মার্কেটিং বিভাগ দ্বিতীয় বর্ষ) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়া পাঁচজনকে দুই বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এবং হল থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।

হামলায় প্ররোচনার দায়ে মো. আরিফুল ইসলামকে (শিক্ষা ও গবেষণা, চতুর্থ বর্ষ) এক বছর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এবং স্থায়ীভাবে হল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পালি অ্যান্ড বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ বিভাগের ২য় বর্ষের কয়েকজন ছাত্রীর যৌন হয়রানি দায়ে সিন্ডিকেট পালি অ্যান্ড বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ বিভাগের হজরত আলী (২য় বর্ষ), আজহারুল ইসলাম (২য় বর্ষ), আশিকুর রহমান (২য় বর্ষ), মোস্তাকিম মামুন আলপিয়াল (২য় বর্ষ) এবং রাহাদ আহমেদকে (২য় বর্ষ) দুই বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করেছে।