থানা ভবনের মালিকের বিরুদ্ধে পূবাইল থানায় প্রথম মামলা । আটক-১

প্রকাশিত

মৃণাল চৌধুরী সৈকত : পূবাইল থানা ভবন মালিকের বিরুদ্ধে থানায় প্রথম মামলাটি রজু হয়েছে। আটক হয়েছেন ভবন মালিক আবদুর রশিদ। ঘটনাটি ঘটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সে সদ্য উদ্বোধন করা গাজীপুর মেট্রোপলিটন (জিএমপি) ৮টি থানার একটি পূবাইল থানায়।
জানা যায়, থানা উদ্বোধনের দ্বিতীয় দিনে রং মিস্ত্রী লক্ষীপুরের জাহাঙ্গীর ভবনের সম্মুখ দেয়ালে রং করার সময় ৩৩ হাজার ভোল্ট তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়ে সাথে সাথে মারা যায় । ফলে নিহত জাহাঙ্গীরের চাচা মোঃ মোমিন বাদী হয়ে ভবন মালিক আবদুর রশিদ ও কেয়ারটেকার উজ্জ্বলকে আসামী করে থানার মামলা করেন। পুলিশ ঘটনার পরপরই ভবন মালিককে আটক করেন। তবে কেয়ারটেকার পলাতক রয়েছে।
স্থানীয় লোকজন জানান, জাহাঙ্গীর নিহত হওয়ার পর তার চাচা মমিনের সাথে ভবন মালিক হাসপাতালে দর কষাকষির সময় পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে এবং জেল হাজতে প্রেরণ করেন ।
মামলার বিবরণে জানা যায়, থানা ভবনটি নির্মাণে গাফিলতি, নিয়ম-নীতি অমান্য করা, ঝুকিপূর্ন ৩৩ হাজার ভোল্ট বৈদ্যুতিক তারের নীচে এবং পল্লী বিদ্যুৎ সাব স্টেশন ঘেঁসে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিস ও এলাকা বাসীর বাধা-নিষেধ তোয়াক্কা না করায় থানা ভবনের মালিক ফরিদপুরের আবদুর রশিদের নামেই ৩০৪ ধারায় রজ্জু হল পূবাইল মেট্রোপলিটন থানার প্রথম মামলা।(মামলা নং ১(৯)২০১৮। থানা উদ্বোধনের দ্বিতীয় দিনে রং মিস্ত্রী লক্ষীপুরের জাহাঙ্গীর ভবনের সম্মুখ দেয়ালে রং করার সময় ৩৩ হাজার ভোল্ট তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়ে সাথে সাথে মারা যান । আদর-যতœ, মেধা-শ্রম, টাকাসহ অক্লান্ত পরিশ্রম করে যে জমির মালিক থানা ভবনটি নির্মাণ করেছে সে-ই হল থানায় এন্ট্রি হওয়া প্রথম মামলার আসামী। কিছুদিন আগেও সে নাকি তালটিয়ার চেয়ারম্যান বাড়ী রোডে তার ভবনে থানা কার্যক্রম চালুর জন্য অনেক দৌড় ঝাঁপ করেছেন উর্দ্ধতন পুলিশ অফিসারদের পিছনে । ভবনটি ভাড়া দিতে রাজি করাতেও সফল হন তিনি। কিন্তু কে জানত তার নিজ হাতে তৈরি করা লকআপে তাকেই প্রথম আসামী হয়ে ঢুকতে হবে? নিয়তি তাকে তার হাতে গড়া লকাপে পৌঁছে দিল। আপাতত তার ঠিকানা হয়েছে জেল হাজতে । বিষয়টি জনমনে ব্যাপক তোলপাড় ও সাড়া জাগিয়েছে । গাজীপুর সিটির মেট্রোপলিটন থানার মোড়কে নতুন জন্ম নেয়ার প্রথম মামলার অভিযোগকারী মোঃ মমিন ১নং আসামী থানা ভবন মালিক আবদুর রশীদ । প্রথম মামলা তদন্ত কর্মকর্তা এস আই রাসেদ এবং অভিযোগ গ্রহণকারী অফিসার্স ইনচার্জ নাজমুল হক ভুঁইয়া । পূবাইল থানার ইতিহাসে পূবাইলবাসী হয়তো কোন দিন ভুলবেনা থানা ভবন মালিকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা তাও আবার প্রথম আসামী।
এব্যাপারে পূবাইল থানা অফিসার্স ইনচার্জ জানান, ভবন মালিক আবদুর রশিদ হাসপাতালে নিহত জাহাঙ্গীরের চাচার সাথে মীমাংসা করতে দর কষাকষি করার সময় তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করি । থানা ভবনের মালিকের বিরুদ্ধেই থানায় প্রথম মামলা হল। এটা অবশ্যই মনে রাখার মত।
##