দেশের চার জেলায় ৪ নারী ধর্ষণের শিকার

প্রকাশিত

ডেস্ক-

দেশের চার জেলায় চার নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে নোয়াখালীর চাটখিলে স্কুলছাত্রী, কুমিল্লার তিতাসে প্রতিবন্ধী, কুড়িগ্রামের উলিপুরে গৃহবধূ ও গাজীপুরের পূবাইলে শিশু রয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

নোয়াখালী ও চাটখিল : চাটখিলে নবম শ্রেণির স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে ফারাবী আহম্মেদ ফয়েজ নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে। ফারাবী উপজেলার পরকোট গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে। এ ঘটনায় ফারাবী ও তার বাবা রুহুল আমিন, ছোট ভাই ফখরুল ইসলাম বিপ্লবকে বুধবার পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এ ব্যাপারী ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে বুধবার থানায় মামলা করেন।

পূবাইল ও পূর্বাচল (গাজীপুর) গাজীপুর মহানগরীর পূবাইল থানার বসুগাঁওয়ে পাঁচ বছরের শিশু ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার বজলু মিয়ার ছেলে তুহিনের বিরুদ্ধে। তুহিন ধর্ষণের কথা স্বীকার করলেও পুলিশ মামলা নিয়েছে ধর্ষণের চেষ্টার। ৪১নং সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর বজলুর রহমান বাসির জানান, ১৫-২০ হাজার টাকা দিয়ে ধর্ষণ চেষ্টার মামলাটি করানো হয়েছে। ধর্ষণ মামলার পরিবর্তে ধর্ষণ চেষ্টা মামলা হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে পূবাইল থানার ওসি মহিদুল ইসলাম জানান, আপনার কাছে প্রমাণ থাকলে একটু পাঠান।

তিতাস (কুমিল্লা) : তিতাস উপজেলায় প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণের ঘটনায় এক মাস পর থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার জগতপুর ইউনিয়নে। এ ঘটনায় ভোক্তভোগীর বাবা বাদী হয়ে আবদুল কাদিরকে অভিযুক্ত করে তিতাস থানায় সোমবার মামলা করেন। পরে প্রতিবেশীরা আবদুল কাদিরকে আটক করে গাছের সঙ্গে বেঁধে মারধর করেন।

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) : উলিপুরে নববধূকে কয়েকদিন আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে নববধূর মা বাদী হয়ে বুধবার উলিপুর থানায় অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা করেছেন। মামলার আসামি হলো-কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের ছমির উদ্দিনের ছেলে সামিউল ইসলাম।