নির্বাচন নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র ধোপে টিকবে না: কাদের

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র ধোপে টিকবে না। বর্তমানে ঢাকার এখানে ওখানে গভীর রাতে বৈঠক চলছে। তারা (বিএনপি) মনে করছে, আমরা জানি না। সব খবরই আমাদের কাছে আছে। তবে এবার কোনো ষড়যন্ত্র টিকবে না। দেশের জনগণ প্রতিহত করবে। জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে।
তিনি আজ মঙ্গলবার দুপুরে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কিনা, তা নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। বিএনপির নির্বাচনে আসার পথে আওয়ামী লীগ বাধা নয়।

ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা এবার সক্রিয় হয়েছে, এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ কী ভাবছে এমন প্রশ্নের জবাবে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আছে, কথা তো থাকতেই পারে, থাইল্যান্ডের বৈঠক। আরও  অনেক জায়গায় তারা (বিএনপি) ঘুরে বেড়াচ্ছে। ঢাকাতেও এখানে-ওখানে গভীর রাতে বৈঠক চলছে। তারা মনে করছে, আমরা জানি না। সব খবরই জানা আছে। এবার কোনো ষড়যন্ত্র টিকবে না।’ গত নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ না করার বিষয়ে আরেক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘এটা কি আওয়ামী লীগের দোষ? শেখ হাসিনার দোষ? তারা নিজেরা সবকিছু উপেক্ষা করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছে। তারা নির্বাচন থেকে সরে গেলে দেশের সাংবিধানিক ধারাকে তো আমরা জলাঞ্জলি দিতে পারি না। এটা হচ্ছে বাস্তবতা।’ ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘বিএনপির নেতারা নির্বাচনি এলাকায় না গিয়ে বিদেশে গিয়ে ধর্ণা দিচ্ছে। নালিশ করছে,  কূটনীতিকদের কাছে যাচ্ছে। এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াপনা।’ খালেদা জিয়ার সিএমএইচে ভর্তির প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘তারা নির্বাচনে সেনাবাহিনী চায়। কিন্তু সেনাবাহিনীর হাসপাতালে তাদের অনীহা। সিএমএইচের চেয়ে ভালো হাসপাতাল আছে বলে আমার জানা নেই।’

এ সময় তিনি আরও বলেন: ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিন রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের নতুন অফিস ভবন উদ্বোধন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভবনের দ্বার উন্মোচন করবেন।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, ডা. দিপু মনি, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এ কে এম এনামুল হক শামীম, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, উপ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা।