নেত্রকোনায় দি নিউ ষ্টার সার্কাসের ঋনের বোঝা পড়েছে প্রাণীর উপরে অধ্যমৃত অবস্থায় আছে ভাল্লুক

প্রকাশিত

নিউজ নেত্রকোনা: নেত্রকোনা জেলা শহরের ইসলাম পুর এলাকায় বঙ্গ বন্ধু ডিগ্রী কলেজ মাঠে গত ২০১৭সালের জানুয়ারির প্রথম দিকে। দি নিউ ষ্টার সার্কাস,বানিজ্যিক মেলা শুরু হয়। পরে অবৈধ ভাবে রেফেল ড্র দিয়ে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করে। অবৈধ কর্মকান্ডের জন্য। সংবাদ প্রকাশের পর প্রশাসনের হস্থক্ষেপে তা বন্ধ হয়ে যায়। সরজমিনে গিয়ে জানা যায়। সার্কাস,মেলা ,রেফেল ড্র চালানোর কথা বলে এলাকা থেকে প্রায় ১০/১২ লক্ষ টাকা সুধের উপরে নিয়ে সার্কাস শুরু করে। রেফেল ড্র ,সার্কাস বন্ধ হয়ে যায় । পরে মাহাজনের সাথে টাকা নিয়েআলোচনা হয়। টাকা দিয়ে প্রাণী গ্রুলো নিয়ে যাবে। এর মধ্যে ছিল ১টি ৩০ কেজি অজনের অজগর, ১ টি ভাল্লুক, ১টি বানর ,১টি ঘোড়া ,২টি কুকুরসহ মোট ৬টি প্রাণী এর মধ্যে কয়েক দিন আগে অজগর সাফটি মারা যায়।এর কারন হিসাবে দেখা যায়। সার্কাসের পরিচালক টাকা পরিশোধ করতেও পারেনা প্রাণী গুলোকে নিতেও পারেনা। এই অবস্থায় প্রাণী গুলোকে সঠিক পরিচর্চা না করার কারনে ৩০ কেজি ওজনের অজগর সাপটি মারা যায় এবং ভাল্লুকটি মৃত প্রায় অবস্থায় আছে।১টি বানর ,২টি কুকুর, ১টি ঘোড়া খোজ নিয়ে জানা যায়। এই প্রাণী গুলোকে দেখার জন্য একজন পাহারাদার নিয়োযুক্ত করা হয়। কিন্তু পাহারাদারের মাসিক টাকা পরিশোধ না করাতে সেও এখান থেকে চলে গেছে। যার কারনে বেশ কয়েক দিন যাবত প্রাণী গুলো না খেয়ে আছে।এইি মহুত্বে যদি এর দায়িত্ব বন বিভাগে বা প্রশাসন না নেয়। তা হলে খাবারের অভাবে যে কোন সময়ে ১টি করে সব কয়টি প্রাণী মারা যাওয়ার স¤ভাবনা রয়েছে।তবে ভাল্লুকটার অবস্থা একদম ভাল না ।এই নিয়ে দি নিউ ষ্টার সার্কাসের পরিচালক মোঃ শাহীনের সাথে যোগা যোগ করলে তিনি বলেন এলাকায় কিছু টাকার সমস্যা আছে এবং প্রশাসনের অনুমতি নেই সার্কাস চালাতে পারছিনা।এই মহুর্ত্বে এস ,এস, সি পরিক্ষা চলছে। পরিক্ষা শেষ হলে প্রাণী গুলোকে নিয়ে যাব।প্রাণী গুলোর বিষয়ে জেলা প্রেস ক্লাবের সহ সভাপরি বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার জাহান চৌধুরী বলেন সার্কাসের রেখে যাওয়া প্রাণীদের অবস্থা একদম ভাল না যে কোন সময়ে মরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এই মহুর্ত্বে প্রাণী গুলোকে বন বিভাগের অধিনে নিয়ে যাওয়া জরুরী।