পাবনার সাঁথিয়ায় ভুয়া কাজীর বিরুদ্ধে বিয়ে রেজিস্ট্রির  অভিযোগ

প্রকাশিত

পাবনা প্রতিনিধি-
পাবনার সাথিয়ায় সরকারি অনুমতি ছাড়াই আব্দুল মতিন (৫৬) নামক এক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে অবৈধ  ভাবে বিয়ে রেজিষ্ট্রি করার  অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি  উপজেলার নাগডেমরা ইউনিয়নের পাটগাড়ি গ্রাামের মৃত তাহেরের ছেলে। জানা গেছে, টাকার লেভে তিনি দীর্ঘ দিন ধরে গোপনে এলাকার অনেক বিয়ে রেজিষ্ট্রি করে আসছেন। তার এই অবৈধ বিয়ে রেজিষ্ট্রি করার  কারনে বর ও কনে উভয় ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। অবৈধ কাজ চালিয়ে নেয়ার স্বার্থে মতিন  নিজের মত করে ভুয়া রেজিষ্টেশনের খাতা ও ভলিউম বই তৈরি করেছে। বইতে লক্ষ লক্ষ টাকার দেন মোহর লিখে সরকারি খাতে জমা না দিয়ে নিজেই আত্মসাৎ করছে। ফলে রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। তার এই অপর্কমের কারনে এলাকায় হৈচৈ পড়ে গেছে। এলাকায় প্রচার রয়েছে কোথায় কারো বিয়ের সংবাদ পেলে মতিন বিয়ে পড়াতে সেখানে গিয়ে হাজির হয়। উপজেলার নাগডেমরা ইউনিয়নের পাটগাড়ি  গ্রামের হযরতের মেয়ের বিয়ে পড়ানোর সময় বৈধ কাজি মোজাম্মেল হকের নিকট ধরা পড়ে । বিষয়টি নিয়ে এলাকায় টানটান উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। অভিযোগ রয়েছে ভুয়া কাজী মতিন গত ১১ জুনে পাটগাড়ী গ্রামের আফছার মোল্লার মেয়ে শারমিন ও একই গ্রামের হাশেমের মেয়ে সোনিয়ার বিয়ে পড়ান। এসব বিষয় নিয়ে কাজি মোজাম্মেল তাকে নিষেধ করলে ভুয়া কাজি মতিন ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে নানাভাবে হুমকি দেয়। গেল ২৭ জুলাই একই গ্রামে এক নারীর তালাকের বিষয়ে কাজে গেলে সেখানে তার সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এক পর‌্যায়ে হুমকি ধামকি দেয়। এ নিয়ে মোজম্মেল হক সাঁথিয়া থানায় মতিনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ করে তার অবৈধ কাগজ পত্র ও ভলিউম বই  উদ্ধারের দাবি জানায়।
অভিযোগ অস্বীকার করে ভুয়া কাজী মতিন বলেন, তিনি কোন সরকারী নিবন্ধিত কাজী নন। তবে তিনি পার্শ্ববর্তী শাহজাদপুর উপজেলার বহলবাড়িয়ার কাজী সিরাজের সহকারী হিসাবে তিনি এসব বিয়ে পড়ান। মতিনের নিকট কাজী সিরাজের মোবাইল নম্বর চাইলে তিনি ফোন কেটে দিয়ে বন্ধ করে দেন।
সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবেু।