পুলিশ বলছে..গুম হননি ত্ব-হা: আত্মগোপনে থেকে গল্প সাজিয়েছেন

প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক-আট দিন নিখোঁজ থাকার পর ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের খোঁজ পাওয়া গেছে। তাকে গুম করা হয়নি, নিজে আত্মগোপনে ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৮ জুন) বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে রংপুর মহানগর পুলিশের (আরএমপি) ক্রাইম ডিভিশনের উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন এতথ্য জানান।

উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন বলেন, তাদের বর্ণনা অনুযায়ী তারা গাইবান্ধায় শহরে এক বন্ধুর বাসায় ছিলেন। এবং সেখান থেকে তারা নিজ নিজ বাসায় চলে আসেন।

তিনি জানান, আজ দুপুরে গোপনসূত্রে পুলিশ জানতে পারে, আবু ত্ব-হা তার প্রথম স্ত্রীর রংপুরের চারতলা মসজিদের পাশের বাসায় আছেন, পরে সেখান থেকে তাকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। তার সঙ্গী রংপুরের দুইজনকে রংপুরের পুলিশ এবং বগুড়ার একজনকে সেখানকার পুলিশ নিয়ে আসে। এখন আইনি প্রক্রিয়ায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা করা এবং আদালতে উপস্থাপন করা হবে। আদালতে তারা যে জবানবন্দি দেবেন, পরে সেই অনুসারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে তাদের কাছ থেকে জেনেছি, ব্যক্তিগত কিছু কারণে তারা আত্মগোপনে ছিলেন।’ তবে সেই ব্যক্তিগত কারণের বিষয়ে কিছু জানাতে রাজি হননি উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন।

পুলিশের উপ-কমিশনার জানান, আবু ত্ব-হা আত্মগোপনে থাকতে তারসহ সঙ্গীয় সবার ফোন বন্ধ করে রাখেন।

এরআগে দুপুরে ডিবি কার্যালয়ে আবু ত্ব-হা আদনানকে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন কোতোয়ালি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশিদ। তিনি জানান, আবু ত্ব-হার সঙ্গে নিখোঁজ হওয়া অন্য তিন জনকেও নিজ নিজ বাড়ি থেকে পুলিশে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশের একটি সূত্র দাবি করেছে, গুম হওয়ার ‘নাটক’ সাজিয়েছিলেন আবু ত্ব-হা আদনান। মূলত পারিবারিক বিবাদের সূত্র ধরে আদনান সঙ্গীয় কয়েকজনকে নিয়ে আত্মগোপনে ছিলেন।

গত বুধবার (১৬ জুন) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করেন আবু আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন নাহার।

তখন তিনি বলেন, ‘সরকার চাইলে দু’-এক ঘণ্টার মধ্যে আবু ত্ব-হাকে উদ্ধার করতে পারে। এখন পর্যন্ত দুইবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যেতে চেয়েছি। প্রবেশের সুযোগ পাইনি। আবার যাবো। আমি আমার স্বামীকে দ্রুত ফিরে পেতে চাই।’

গত ১০ জুন রংপুরে ওয়াজ মাহফিল শেষে ঢাকার বাসায় ফেরার পথে আবু ত্ব-হাসহ চারজন নিখোঁজ হন। আবু ত্ব-হার পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, ঢাকার গাবতলী থেকে তারা নিখোঁজ হন। আবু ত্ব-হার সঙ্গে নিখোঁজ হয়েছিলেন আরও তিনজন। এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

আবু ত্ব-হার সঙ্গে আরও যারা নিখোঁজ হন, তারা হলেন- আব্দুল মুকিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ। আবু ত্ব-হার পরিবার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্রে জানা গেছে, আবু ত্ব-হার বিভিন্ন ইসলামিক অনুষ্ঠান ও মাহফিলে তারা সঙ্গে থাকতেন। এই তিনজনের সঙ্গে আবু ত্ব-হার সখ্যতা আছে।

আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের প্রকৃত নাম আফছানুল আদনান। বয়স ৩১। বাবা মৃত রফিকুল ইসলাম। আদনানের প্রথম স্ত্রী আবিদা নুর, তাদের সংসারে তিন বছরের মেয়ে ও দেড় বছর বয়সী ছেলে-সন্তান রয়েছে।

বাবা মারা যাওয়ার পর রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডে নানার বাড়িতে বড় হন আদনান। বিয়ের পর স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে নগরীর নিউ শালবন এলাকায় বসবাস করছিলেন। কয়েক মাস আগে আদনান আরেকটি বিয়ে করেন। তার দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার সারা ঢাকার মিরপুর আল ইদফান ইসলামী গার্লস মাদ্রাসার পরিচালক ও শিক্ষক।