পুলিশ বাহিনী অত্যন্ত নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে -প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত

তুহিন সারোয়ার-
নবগঠিত আটটি নতুন থানা এলাকা নিয়ে যাত্রা শুরু করলো বহুল কাঙ্খিত গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি)।গতকাল সকাল ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জিএমপির কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনস ময়দানে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু এবং পুলিশের উন্নয়নের ওপর প্রামাণ্য চিত্র উপস্থাপন করা হয়।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর ঢাক-ঢোল নিয়ে বাদ্য বাজিয়ে ও ঘোড়ার গাড়ির বহর নিয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে পুলিশ লাইন মাঠে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, অ্যাডভোকেট রহমত আলী এমপি, সিমিন হোসেন রিমি এমপি, পুলিশের আইজিপি ড,মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী,গাজীপুর মহানগর পুলিশের কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি আখতারউজ্জামান, সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম,মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমতউল্লাহ খান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ জেলা প্রশাসক দেওয়ান মো: হুমায়ুন কবীর, পুলিশ সুপার শামছুন্নাহার প্রমুখ। ভিডিও কনফারেন্সের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,আমাদের পুলিশ বাহিনী অত্যন্ত সততার সাথে দায়িত্ব পালন করে বাংলাদেশের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছে। এখন মানুষের কিন্তু পুলিশের ওপর একটা আস্থা বিশ্বাসও ফিরে এসেছে, যেটা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ বলে মনে করি।একটি দেশকে উন্নত করতে হলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল আইনশৃংখলা নিয়ন্ত্রণে রাখা, আর এ কাজে পুলিশ বাহিনী সফল হয়েছে। শেখ হাসিনা আরো বলেন, ১৯৯৬ সালে তিনি যখন প্রথমবার ক্ষমতায় আসেন, পুলিশ মাত্র ২০ শতাংশ রেশন পেত। এখন তা বাড়িয়ে শতভাগ করা হয়েছে। নির্বাচনের বর্ষপূর্তি ঘিরে ২০১৫ সালে বিএনপি-জামায়াত জোটের টানা হরতাল-অবরোধের মধ্যে নাশকতা দমনে পুলিশের ভূমিকার কথাও অনুষ্ঠানে স্মরণ করেন শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানের ২য় পর্বে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে খ্যাতনামা শিল্পীরা সঙ্গীত পরিবেশন করেন।
উল্লেখ্য-গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের আওতায় থাকবে আটটি থানা। জিএমপির নতুন থানা ও এর অধিভুক্ত এলাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আওতাধীন আটটি নতুন থানা হলো সদর (বর্তমান জয়দেবপুর থানা), বাসন, কোনাবাড়ি, কাশিমপুর, গাছা, পূবাইল, টঙ্গী পূর্ব ও টঙ্গী পশ্চিম থানা। নতুন মেট্রোপলিটন এলাকায় এই ৮টি থানায় কাজ করবে সাড়ে ১১শ’ পুলিশ সদস্য।