ফরিদগঞ্জে মাদকসহ আত্মীয় আটক , এস আই ক্লোজড

প্রকাশিত

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি: ফরিদগঞ্জের সোর্স থেকে তথ্য পেয়ে পুলিশ কর্মকর্তার নিকটাত্মীয়কে মাদকসহ আটক করা হয়। এতে ক্ষুব্ধ পুলিশ কর্মকর্তা সোর্সকে মারধর করেন। বিচার চেয়ে ওসির কাছে সোর্স অভিযোগ করেন। এতে, অভিযুক্ত পুলিশের এসআই আবুল কালামকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করেছে চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার।
সূত্রে জানা গেছে, সোর্স এর সংবাদের ভিত্তিতে দুইজন মাদক ব্যবসায়ীকে এক কেজি গাঁজাসহ আটক করে এস.আই নুরুল ইসলাম। ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৩ নং সুবিদপুর পুর্ব ইউনিয়নের মনতলা এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাতে তাদের আটক করা হয়। পুলিশ জানায়, ওই দুই মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ি কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানার মুড়াপাড়া গ্রামে। আটককৃত আব্দুর রহিম (২৮) ফরিদগঞ্জ থানার এসআই আবুল কালামের মৃত সহোদর ভাই আক্তার আলীর ছেলে। অপরজন জেঠাতো ভাই আবুল কাশেমের ছেলে মাসুক ওরফে মাসুদুর রহমান (৩২)।
পরদিন বুধবার বিকালে দুই মাদক কারবারীর তথ্য সরবরাহকারী পুলিশের সোর্স ও সিএনজি অটোরিক্সা চালককে থানার সামনে পেয়ে বেদম পিটুনি দেয়। এতে মারাত্মক আহত হন অটোরিক্সা চালক। তাকে মারধরের কথা জানিয়ে অটোরিক্সা চালক পুলিশের এসপির কাছে মৌখিক অভিযোগ করেন। এতে এসপির নির্দেশে এসআই আবুল কালামকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের ওই সোর্স জানান, এসআই আবুল কালাম আমাকে শুধু পিটিয়েই ক্ষান্ত হননি, তিনি আমাকে মারতে মারতে থানার সামনের একটি খাবারের দোকানে নিয়ে হুমকি দিয়ে বলেছেন, আমাকে ইয়াবাসহ চালান দিবে। এমনকি বিভিন্ন মামলার আসামি করে আমার জীবন শেষ করে দেবে। আমি নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই।
ঘটনার বিষয়ে, এস আই আবুল কালাম আজাদ বলেন ক্লোজ করার বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। তবে, চাঁদপুর সদর থানায় বদলির আদেশ হয়েছে।
এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন শুক্রবার বিকালে জানান, আমি ঘটনাটি শুনে জেলা পুলিশ সুপার মো: মাহবুবুর রহমানকে জানাই। বুধবার রাতেই এসআই আবুল কালামকে চাঁদপুর পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে।