ফুুলবাড়ীতে পান চাষে সফল আইয়ুব আলী

প্রকাশিত

ফুলবাড়ী(দিনাজপুর) প্রতিনিধি;
পান চাষে ভাল ফলন ও লাভজনক হওয়ায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে উপজেলার ছোট ভিমলপুর গ্রামের কিনু মন্ডলের ছেলে আইয়ুব আলী অভিজ্ঞ পান চাষীদের সফলতা দেখে অনুপ্রানিত হয়ে প্রথম বারের মতো পানের বরজ করে সফল হয়েছেন।
ফুলবাড়ী উপজেলার মাটিতে পান চাষ করে লাভের মুখ দেখেছেন পান চাষী আইয়ুব আলী। এ অঞ্চলে কেউ কখনও পান চাষের উদ্যোগ না নিলেও ভিমলপুরের কৃষক আইয়ুব আলী প্রথমবার পান চাষ করে সফল হয়েছেন। দেখছেন ভাগ্য বদলের স্বপ্ন। তার সাফল্যে অনুপ্রানিত হয়ে অনেক চাষিই ছুটে আসছেন তার কাছে পান চাষের পরামর্শ নিতে।

জানা গেছে, আইয়ুব আলী ২০১৮ সালে তার এক নিকট আত্মীয়ের বাড়ীতে বেড়াতে গিয়ে সেখানে পানের চাষ আবাদ দেখে অনুপ্রানিত হয়। ওই আত্মীয়ের সহযোগিতায় রাজশাহীর মোহনপুর থেকে প্রায় ২০ হাজার টাকায় ৮ হাজার পানের চারা কিনে এনে ২০ শতাংশ জমিতে পানের বরজ তৈরি করেন। পর পর চারবার তার বরজের পানের চারাগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এতে ২০ হাজার টাকার ক্ষতি হয় তার। তবুও হাল ছাড়েননি আইয়ুব আলী । পঞ্চমবার চারা লাগানোর পর তিনি সফল হয়েছেন। এরই মধ্যে তার বরজের পান পাতা বড় হয়েছে বিক্রিও করেছেন।

পান চাষী আইয়ুব আলী জানান ছোট ভিমলপুর গ্রামের মাটি পান চাষের উপযুক্ত হওয়ায় এখনকার পান সুস্বাদু ফলে বাজারে অনেকটাই কদর রয়েছে। পান কিনতে প্রতিদিনই ব্যবসায়ীরা ছুটে আসেন তার বরজে। তিনি আরও জানান, চারবার ক্ষতির পরও ২০ শতাংশ জমিতে পান চাষে তার মোট খরচ হয়েছে দেড় লাখ টাকার মতো। এরই মধ্যে তিনি প্রায় ৩ লাখ টাকার পান বিক্রি করেছেন। এখন প্রতি সপ্তাহে ৫ হাজার টাকার পান বিক্রি করছেন তিনি। পান চাষের নিয়ম অনুযায়ী বর্তমানে পান গাছের লতা বাড়তি হলে আবার সে লতা গুলো মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হয় এখন সেই প্রস্তুতি চলছে। তিনি এ বাগান থেকে প্রতি বছর আরও ২ লাখ টাকার পান বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। তার সাফল্যে এলাকার অনেক কৃষক পান চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। তারা বরজে এসে পান চাষের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিচ্ছেন।
তিনি বলেন, আমাদের দেশে পানের চাষ একটি সম্ভাবনাময় ব্যবসা। পানের ব্যবসা করে অনেক দরিদ্র পরিবার বর্তমানে সাবলম্বী হচ্ছেন। তাই সরকার যদি পান চাষীদের বিশেষ সুবিধা দিয়ে কৃষি ঋণ দেন তাহলে এই ক্ষেত্রে একটি বিপ্লবের সম্ভাবনা রয়েছে।
ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এটিএম হামিম আশরাফ জানান, আইয়ুব আলীর সাফল্যের মধ্যদিয়ে এই উপজেলায় পান চাষের উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে পানের বরজ পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। পান চাষে উদ্যোগী চাষিদের সবধরনের সহযোগিতা দিতে কৃষি বিভাগ প্রস্তুত বলে তিনি জানান।