বাবা-মার পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত সাংবাদিক এম এ কাশেম রানা

প্রকাশিত

মৃণাল চৌধুরী সৈকত :
টঙ্গী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবং ভোরের কাগজের স্টাফ রিপোর্টার (টঙ্গী) এম এ কাশেম রানা তার নিজ বাড়ি হায়দরাবাদের শুকুন্দিরবাগ গ্রামে বাবা-মার পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন।


গতকাল রোববার সকাল ৮টায় টঙ্গী প্রেস ক্লাবের সামনে কাদেরিয়া টেক্সটাইল জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত জানাজায় বিএফইউজের মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আতাউর রহমান, দৈনিক ভোরের কাগজের মফস্বল সম্পাদক আবদুল মোতালেব, ডিএসইসি’র সাবেক নির্বাহী সদস্য নাসির উদ্দিন বুলবুল, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য মনসুর আহম্মেদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, ডাক্তার, আইনজীবী, টঙ্গী প্রেস ক্লাব, টঙ্গী থানা প্রেস, টঙ্গী সিটি প্রেস ক্লাবের সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, গাজীপুরের বিভিন্ন সংবাদপত্র এবং টেলিভিশন চ্যানেলে কর্মরত সাংবাদিকগণসহ অধ্যক্ষ মোঃ আলাউদ্দিন মিয়া, অধ্যক্ষ মোঃ মনিরুজ্জামান, অধ্যক্ষ ওয়াদুদুর রহমান, কাউন্সিলর মোঃ নাসির উদ্দিন মোল্লা, ভোরের কাগজের বিজ্ঞাপন ব্যবস্থাপকসহ সর্বস্তরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। জানাজা শেষে বিভিন্ন সংগঠন ফুলের তোড়া দিয়ে তাকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।


পরে সকাল ১০টায় হায়দ্রাবাদস্থ শুকুন্দিরবাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ২য় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার নামাজ পড়ান মরহুমের একমাত্র ছেলে মোঃ রাফাত আল ফয়সাল। এসময় উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, স্থানীয় কউন্সিলরসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
উল্লেখ্য, গত শনিবার দুপুরে নিজ বাড়ি টঙ্গীর হায়দরাবাদের শুকুন্দিরবাগে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৫ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
কর্মময় জীবনে কাশেম রানা প্রথমে দৈনিক রূপালী, দৈনিক বাংলার বাণী এবং সর্বশেষ দৈনিক ভোরের কাগজে কর্মরত ছিলেন। তিনি টঙ্গী প্রেস ক্লাবের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নেরও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। তার এ অকাল মৃত্যুতে টঙ্গী ও গাজীপুরের সাংবাদিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
##