বৃহস্পতিবার দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার বিরুদ্ধে পার্লামেন্টে অনাস্থা প্রস্তাব

প্রকাশিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে যাচ্ছে নিজের দল আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস (এএনসি)। বৃহস্পতিবার এ প্রস্তাব আনা হবে বলে জানিয়েছে দলটি।

জুমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসেবে পরিচিত গুপ্ত ভাইদের বিলাসবহুল বাড়িতে পুলিশি অভিযানের কয়েক ঘন্টা পর এএনসি এ ঘোষণা দিল। দলটি আরো জানিয়েছে, বৃহস্পতিবারই দেশের নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবে পার্লামেন্ট।

এএনসি জানিয়েছে, প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে আনা বিরোধী দলের একটি অনাস্থা প্রস্তাবে বৃহস্পতিবার সরকার দলীয় এমপিরা ভোট দেবে। এর মাধ্যমে জুমার ৯ বছরের শাসনের অবসান ঘটানো হবে।

এএনসির চিফ হুইপ জ্যাকসন এমথিমবু রাজধানী কেপটাউনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আগামীকাল প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্টকে অপসারণের পক্ষে ভোট দেওয়ার পর প্রধান বিচারপতিকে পাওয়া সাপেক্ষে ওই দিনই আমরা নতুন বিচারপতি নির্বাচন করব।

নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে বর্তমানে ভাইস প্রেসিডেন্ট ও দলীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী সিরিল রামাফোসাকে নির্বাচন করা হবে। শুক্রবারই তার শপথ পড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন এমথিমবু।

এদিকে বুধবার ভারতীয় বংশোদ্ভূত ধনী ব্যবসায়ী গুপ্ত ভাইদের বাড়িতে অভিযান চালিয়ছে পুলিশ। জুমার সঙ্গে এই গুপ্ত পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের কারণে সরকারের ভেতর পরিবারটি প্রভাব বিস্তার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। বুধবার পুলিশ এই পরিবারের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে।

২০০৯ সালে ক্ষমতায় বসার পর থেকে দুর্নীতির অভিযোগ আসতে থাকে জুমার বিরুদ্ধে। জুমা বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। ব্যক্তিগত বাড়ি নির্মাণে সরকারি কোষাগার থেকে ব্যয় হওয়া অর্থ ফেরত দিতে ব্যর্থতার দায়ে ২০১৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার সর্বোচ্চ আদালত জুমার বিরুদ্ধে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ আনে। এর রেশ না কাটতেই গত বছর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ১৯৯৯ সালে স্বাক্ষরিত এক অস্ত্র চুক্তিতে দুর্নীতি, জালিয়াতি, কালোবাজারি ও মুদ্রা পাচারের ১৮ ধরণের অভিযোগে জুমার বিচার শুরুর নির্দেশ দেয়। শেষ পর্যন্ত গত বছরের শেষদিকে এএনসির শীর্ষপদ থেকে সরে যেতে বাধ্য করা হয় জুমাকে। ওই সময় সিরিল রামপোসা দলের শীর্ষ নেতা নির্বাচিত হন। এরপর থেকেই ক্ষমতা থেকে সরে যেতে জুমার ওপর ধারাবাহিকভাবে চাপ বাড়তে থাকে।