ভারতে স্বেচ্ছামৃত্যুর অধিকারের ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট!!

প্রকাশিত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভোগা ব্যক্তিদের স্বেচ্ছামৃত্যুর অধিকার দিয়ে ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।
শুক্রবার (৯ মার্চ) ভারতের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে ৫ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ এই রায় দেয়।
এ রায়ে বলা হয়েছে, সম্মানের সঙ্গে মৃত্যুবরণের অধিকার মানুষের রয়েছে। রায়কে উদ্ধৃত করে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, এই অধিকার কার্যকর হবে নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে।
ভারতের সুপ্রিম কোর্ট ভারতীয় সংবিধান অনুসারে আত্মহত্যা অপরাধ। একই সঙ্গে স্বেচ্ছামৃত্যু নিয়েও ছিল না কোনও আইন। স্বেচ্ছামৃত্যু নিয়ে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়ে “কমন-কজ” নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বলেছিল, “বেঁচে থাকাটা মানুষের ব্যক্তিগত অধিকার। ঠিক তেমনই মরণাপন্ন কোনও ব্যক্তি যদি রোগ-যন্ত্রণা ভোগ করার বদলে সম্মানের সঙ্গে মরতে চান, তবে তাকেও সে অধিকার দেওয়া উচিত।” আজ সে অধিকারই দিল ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।
ভারতের শীর্ষ আদালত জানিয়ে দিয়েছে, চিকিৎসায় সুস্থ হতে পারবেন না, এমন কোনও ব্যক্তি যদি ভেন্টিলেটর কিংবা লাইফ সাপোর্ট সিস্টেমের সাহায্যে বেঁচে থাকতে না চান, তবে তাকে সজ্ঞানে “লিভিং উইল” করে স্বেচ্ছামৃত্যু চেয়ে রাখতে হবে। রোগী যদি এমন অচেতন অবস্থায় পৌঁছে যান যে সেই অবস্থা থেকে ফেরানোর আর সম্ভাবনা নেই, তখন সেই উইল বা ইচ্ছাপত্রের ভিত্তিতে হাইকোর্টে আবেদন করতে পারেন রোগীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু বা নিকট কোনও আত্মীয়।
এরপর আদালতের নির্দেশের ভিত্তিতে গঠিত মেডিক্যাল বোর্ড বিষয়টি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। যতদিন না স্বেচ্ছামৃত্যু নিয়ে আইন আসছে ততদিন পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের কড়া গাইডলাইন মেনে এই অধিকার পাবে ভারতবাসী।