মতিঝিল আইডিয়ালে ৬ মাসের বেতন মওকুফের দাবি অভিভাবকদের

প্রকাশিত

মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি মওকুফের দাবি জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার অভিভাবক ফোরামের পক্ষ থেকে এ দাবি জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘কারোনা পরিস্থিতির কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে অনেক অভিভাবকের চাকরি, বেতন-ভাতা, ব্যবসা বাণিজ্য, আয়-রোজগার বন্ধ। পরিবারের সন্তান-সন্ততিদের ভরণ-পোষণে ত্রাহী অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এই স্কুলে মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত, নিম্ন আয়ের অভিভাবকদের ২৬ হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করে আসছে। অনেকে সন্তানদের ঠিকমতো খাবার জোগার করে দিতে পারছেন না। তারা অমানবিক জীবন-যাপন করে বাসা ভাড়া না দিতে পেরে পরিবার-পরিজনদের গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছেন।’

‘বর্তমান মুহূর্তে আইডিয়াল স্কুল কর্তৃপক্ষ গত জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের ছয় মাসের টিউশন ফি আদায়ের জন্য অমানবিক চাপ দিচ্ছে। শ্রেণি শিক্ষকদের মাধ্যমে মোবাইলে রাতে এবং দিনে টিউশন ফি পরিশোধ করা না হলে অনলাইন ক্লাস থেকে বহিষ্কার, পরবর্তী ক্লাসে উন্নিত করা হবে না বলে হুমকি দিচ্ছে।’

এতে বলা হয়, ‘জানা যায়, স্কুলের সভাপতি শিক্ষকদের জানিয়ে দিয়েছেন টিউশন ফি আদায় করতে না পারলে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বেতন দেয়া হবে না, যা সম্পূর্ণভাবে অমানবিক ও অনৈতিক কাজ। ইতোমধ্যে দেশের অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষার্থীদের ৫০ শতাংশ টিউশন ফি মওকুফ করে দিয়েছে।’

বলা হয়েছে, ‘বছরের শুরুতে আইডিয়ালের ২৬ হাজার শিক্ষার্থীর কাছে বাংলা ভার্ষণে ৮ হাজার ও ইংরেজি ভার্ষণে ১০ হাজার টাকা করে প্রায় ২৫ কোটি টাকা আদায় করা হয়েছে। করোনাকালীন দুর্যোগ সময়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির ফান্ড থেকে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা যায়।’

‘এ ছাড়া প্রতি মাসে প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা ছাত্রদের টিউশন ফি আদায় করা হয়। এ প্রতিষ্ঠানে সবসময় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তিন মাসের টিউশন ফি অগ্রিম আদায় করে থাকে, যা অনৈতিক এবং অভিভাবকদের কাছে বোঝাস্বরূপ। তাই শিক্ষার্থীদের গত জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ছয় মাসের টিউশন ফি মওকুফের দাবি জানাচ্ছি,’ বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।