মালদ্বীপকে ৬ রানে অলআউটের লজ্জা দিল বাংলাদেশ

প্রকাশিত

ক্রীড়া ডেস্ক -দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে (এসএ) নিজেদের শেষ ম্যাচেও জয় পেল বাংলাদেশ। মালদ্বীপকে ২৪৯ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

নেপালের পোখড়ায় বাংলাদেশ আগে ব্যাটিং করে ২ উইকেটে করেছিল ২৫৫ রান। জবাবে মালদ্বীপ করে মাত্র ৬ রান।

এসএ উড়ছে বাংলাদেশের মেয়েরা। ফাইনাল নিশ্চিত করা বাংলাদেশ নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে দূর্বল মালদ্বীপের বিপক্ষে রানের পাহাড় গড়ে। ২৫৫ রান মেয়েদের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ দলীয় রান। এর আগে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান ছিল ১৫২।

৬ রানে মালদ্বীপকে অলআউট করে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানের ব্যবধানে জয়ের রেকর্ডও গড়েছে বাংলাদেশ। এর আগে উগান্ডা মালিকে ৩০৪ রানে এবং তানজানিয়া মালিকে ২৬৮ রানে হারিয়েছিল। মালদ্বীপ যৌথভাবে টি-টোয়েন্টিতে সর্বনিম্ন রানে অলআউটের রেকর্ডে নিজেদের জড়িয়ে নিয়েছে। এ বছরই মালি ইষ্ট আফ্রিকার দেশ রায়ান্ডার বিপক্ষে ৬ রানে অলআউট হয়েছিল।

নিজেদের সর্বোচ্চ রান পাওয়ার দিনে প্রথমবারের মতো সেঞ্চুরির স্বাদ পেয়েছেন মেয়েরা। একটি নয়, বাংলাদেশের ইনিংসে সেঞ্চুরি এসেছে দুটি। বাংলাদেশের প্রথম নারী ক্রিকেটার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে সেঞ্চুরি করেছেন নিগার সুলতানা। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে তার পথ অনুসরণ করে সেঞ্চুরি পেয়েছেন ফারজানা হক। এর আগে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান ছিল ৭১। সানজিদা থাইল্যান্ডের বিপক্ষে ওই রান করেছিলেন।

টস জিতে আজ আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক সালমা খাতুন। বাংলাদেশের শুরুটা ভালো ছিল না। ১৯ রানে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শামীমা সুলতানা (৫) ও সানজিদা ইসলাম (৭) ফেরেন সাজঘরে।

তৃতীয় উইকেটে জুটি বাঁধেন নিগার ও ফারজানা। তৃতীয় ওভার থেকে শুরু হয় তাদের লড়াই। ইনিংস শেষও করেন এ দুই ব্যাটম্যান। পাক্কা ১৮ ওভার ব্যাটিং করে ২৩৬ রান তোলেন। মেয়েদের ক্রিকেটে এটি যেকোনো উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি। এর আগে ২২৭ রানের জুটি গড়েছিলেন উগান্ডার দুই নারী ক্রিকেটার প্রোসোকোভিয়া অলোকো ও রিতু মুসামালি। মালির বিপক্ষে ওই ম্যাচে দুই ক্রিকেটার পেয়েছিলেন সেঞ্চুরি।

বাংলাদেশের ইনিংসে বাউন্ডারি এসেছে ৩৬টি, ওভার বাউন্ডারি ৩টি। ফারজানা সর্বোচ্চ ২০টি এবং নিগার ১৪টি চার মারেন। ৩টি ছক্কাই এসেছে নিগার সুলাতানার ব্যাট থেকে। ৬৫ বলে ১১৩ রান করেন নিগার। ফারজানা ৫৩ বলে ১১০ রানের ইনিংসটি সাজান।

ব্যাটিংয়ের পর পুচকে মালদ্বীপের বিপক্ষে বোলিংয়ে দাপট দেখায় বাংলাদেশ। ৬ রানে অলআউট করে পার্থক্য স্পষ্ট করে এশিয়ার চ্যাম্পিয়নরা। বল হাতে রিতু রানী নেন ৩ উইকেট। অধিনায়ক সালমা পেয়েছেন ২ উইকেট।