রংপুরে একই ছেলের সঙ্গে প্রেম, অতপর দুই বোনের মৃত্যু

প্রকাশিত

নিউজ রংপুর :রংপুরে স্কুল পড়ুয়া দুই বোন এক ছেলেকে ভালোবাসত। এ নিয়ে বোনে বোনে ঝগড়া। একপর্যায়ে দুই বোনই প্রেমে ব্যর্থ হয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নগরীর ধর্মদাশ এলাকার শেখ পাড়ায়।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, রংপুর নগরীর ধর্মদাস শেখ পাড়া মহল্লার লিটন মিয়ার কন্যা লুৎফর নাহার লতা (১৪) সে স্থানীয় নাজির দিগর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী এবং তার খালাতো বোন এই মহল্লার আলমগীর হোসেনের মেয়ে দর্শনা বছিরন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী সাদিয়া জান্নাত অরনী (১৪)। দুই বোন একই এলাকার আনছার আলীর ছেলে নগরীর মর্ডান কলেজের অর্নাসের ছাত্র মেরাজুলকে ভালবাসত। দুজনেই গোপনে ওই যুবককে নিবেদন করে। কিন্তু দু’বোন কেউ কাউকে বিষয়টি প্রকাশ করেনি। মেরাজুল দুই বোনের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে। একপর্যায়ে দু’বোন জানতে পারে মেরাজুল অন্য একটি মেয়ের সাথে প্রেম করছে।

প্রেমিকের অন্যত্র প্রেমের বিষয়টি জানার পর সোমবার সকালে দুই বোন এক সাথে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার গভীর রাতে দুই বোন মারা যায়।

বুধবার সকালে হাসপাতালে দু’বোনের স্বজনদের সাথে কথা হলে কেউই প্রেমঘটিত কারণে বিষপান করে আত্মহত্যার কথা স্বীকার করেনি। তবে অরনীর বাবা আলমগীর দাবি করেন, দু’বোন ঝগড়া করে রাগের মাথায় বিষপান করে আত্মহত্যা করেছে।

রংপুর সিটি করপোরেশনের স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আখতারুজ্জামান ভুট্টুর জানান, এলাকাবাসীর কাছে  তিনি জানতে পেরেছেন মেরাজুল নামে এক যুবকের সাথে প্রেম করার ঘটনা নিয়ে দু’বোন বিষপান করেছে। তবে এ ঘটনার পর ওই যুবক পলাতক রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

এ বিষয়ে কোতয়ালী থানার এস আই ওলিয়ার রহমান জানান, দুই কিশোরী বিষপান করে এবং তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তাদের বাবা-মা ও সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমানসহ গণমান্য ব্যক্তিরা থানায় এসে লিখিতভাবে কারো বিরুদ্ধে অভিযোগও নেই বলে জানালে, কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুযায়ী দুই কিশোরীর লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে বুধবার দুপুর একটার দিকে হস্তান্তর করা হয়েছে।

স্কুল পড়ুয়া দুই বোন এক ছেলেকে ভালোবাসত। এ নিয়ে বোনে বোনে ঝগড়া। একপর্যায়ে দুই বোনই প্রেমে ব্যর্থ হয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নগরীর ধর্মদাশ এলাকার শেখ পাড়ায়।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, রংপুর নগরীর ধর্মদাস শেখ পাড়া মহল্লার লিটন মিয়ার কন্যা লুৎফর নাহার লতা (১৪) সে স্থানীয় নাজির দিগর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী এবং তার খালাতো বোন এই মহল্লার আলমগীর হোসেনের মেয়ে দর্শনা বছিরন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী সাদিয়া জান্নাত অরনী (১৪)। দুই বোন একই এলাকার আনছার আলীর ছেলে নগরীর মর্ডান কলেজের অর্নাসের ছাত্র মেরাজুলকে ভালবাসত। দুজনেই গোপনে ওই যুবককে নিবেদন করে। কিন্তু দু’বোন কেউ কাউকে বিষয়টি প্রকাশ করেনি। মেরাজুল দুই বোনের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে। একপর্যায়ে দু’বোন জানতে পারে মেরাজুল অন্য একটি মেয়ের সাথে প্রেম করছে।

প্রেমিকের অন্যত্র প্রেমের বিষয়টি জানার পর সোমবার সকালে দুই বোন এক সাথে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার গভীর রাতে দুই বোন মারা যায়।

বুধবার সকালে হাসপাতালে দু’বোনের স্বজনদের সাথে কথা হলে কেউই প্রেমঘটিত কারণে বিষপান করে আত্মহত্যার কথা স্বীকার করেনি। তবে অরনীর বাবা আলমগীর দাবি করেন, দু’বোন ঝগড়া করে রাগের মাথায় বিষপান করে আত্মহত্যা করেছে।

রংপুর সিটি করপোরেশনের স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আখতারুজ্জামান ভুট্টুর জানান, এলাকাবাসীর কাছে  তিনি জানতে পেরেছেন মেরাজুল নামে এক যুবকের সাথে প্রেম করার ঘটনা নিয়ে দু’বোন বিষপান করেছে। তবে এ ঘটনার পর ওই যুবক পলাতক রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

এ বিষয়ে কোতয়ালী থানার এস আই ওলিয়ার রহমান জানান, দুই কিশোরী বিষপান করে এবং তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তাদের বাবা-মা ও সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমানসহ গণমান্য ব্যক্তিরা থানায় এসে লিখিতভাবে কারো বিরুদ্ধে অভিযোগও নেই বলে জানালে, কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুযায়ী দুই কিশোরীর লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে বুধবার দুপুর একটার দিকে হস্তান্তর করা হয়েছে।