রসিক নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে : সিইসি

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

রংপুর সিটি করপোরেশনে (রসিক) বিদ্যমান পরিস্থিতিতে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আমাদের অনুকূলে রয়েছে। আশা করি, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য ভোট হবে।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে সংবাদ সংম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

কে এম নুরুল হুদা বলেন, নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এখন পর্যন্ত আমাদের যে অবজারভেশন, পরিস্থিতি সম্পূর্ণ অনুকূলে রয়েছে। সুন্দর, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য ভোট হবে।

রসিক নির্বাচনে মাত্র একটি কেন্দ্রেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার হওয়ার কথা বললেও ভোটের একদিন আগে সংশয় প্রকাশ করেছেন সিইসি।

তিনি বলেছেন, রংপুরে গোটা তিনেক কেন্দ্রে সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করা হবে। একটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহারের কথা ছিল। সম্পূর্ণভাবে সিকিউরড হলেই তখনই এটা ব্যবহার করা হবে।

রসিকের ১৯৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৪১ নম্বর কেন্দ্রে নিজেদের তৈরি ইভিএম ব্যবহারে ইতোমধ্যে মহড়া ও প্রচার করেছে নির্বাচন কমিশন।

এক প্রশ্নের জবাবে কে এম নুরুল হুদা বলেন, এটা টেকনিক্যাল বিষয়। কারিগরি টিম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে। এখনো কনফার্ম করতে পারছি না, ইভিএম হবে কি না। শতভাগ নিশ্চিত না হয়ে তো ব্যবহার করতে পারি না। নতুন ইভিএম তো, কাল সকালেই নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এ সময় নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম জানান, রংপুর সিটি নির্বাচনকে আমরা মডেল নির্বাচন করতে চাই। যাতে ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট দিয়ে বাড়ি যেতে পারেন সে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, এ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাড়ে ৫ হাজারেরও বেশি সদস্য নিয়োজিত থাকবে। নির্বাচন পরিস্থতি ‌পর্যবেক্ষণে নির্বাহী ও বিচারিক হাকিম, মনিটরিং টিমসহ সংশ্লিষ্টরা মাঠে আছেন।

উল্লেখ্য, রসিক নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন; ৩৩টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ২১১ জন এবং ১১টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৬৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

রংপুর সিটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৮৯৪ জন। পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৯৬ হাজার ২৫৬, নারী ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ১৯৩। ভোটকক্ষ ১ হাজার ১৭৮টি। ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ৩ হাজার ৫৫৯ জন।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনকালে নিরাপত্তা বাহিনীর ৫ হাজার ৫০০ সদস্য মোতায়েন করা হচ্ছে। এর মধ্যে বিজিবি ২১ প্লাটুন (৬৩০ জন), র‌্যাবের ৩৩ টিম (৪০০ জন), পুলিশ ও আনসার সদস্য থাকবে ৪ হাজার ৪৭০ জন।

এছাড়া একজন করে নির্বাহী হাকিমের নেতৃত্বে ৩৩টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, একজন করে বিচারিক হাকিমের নেতৃত্বে ১১টি ভ্রাম্যমাণ আদালত সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এবং ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

Be the first to write a comment.

Leave a Reply