রিজার্ভ চুরির অর্থ আদায়ে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে বাংলাদেশের মামলা

প্রকাশিত

রিজার্ভ থেকে চুরি হওয়া বাকি অর্থ উদ্ধারে ফিলিপাইনের রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংক করপোরেশনের (আরসিবিসি) বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী শুক্রবার ম্যানহাটনে মার্কিন জেলা কোর্টে বাংলাদেশ ব্যাংক এ মামলা করে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী শুক্রবার নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটন সাদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্ট বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে এ মামলা করা হয়।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত বিএফআইইউর উপদেষ্টা দেবপ্রসাদ দেবনাথও মোবাইলে খুদেবার্তা পাঠিয়ে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান জানান, মামলায় আরসিবিসিকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া চুরি হওয়া রিজার্ভের অর্থের সুবিধাভোগী আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে আসামি করা হয়েছে।

মামলায় বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ান হ্যাকারদের সহায়তায় তহবিল চুরি করা হয়েছে। নেটওয়ার্কে অ্যাক্সেস পাওয়ার জন্য ‘নেস্টেগ’ এবং ‘ম্যাকট্রাক’ নামে ম্যালওয়্যার ব্যবহার করেছিল তারা। আরসিবিসি ব্যাংকের অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে নিউইয়র্ক থেকে ফিলিপাইনে টাকা নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে রিজার্ভ চুরির ঘটনায় মামলা করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল নিউইয়র্কে যান।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে শ্রীলংকায় যাওয়া ২ কোটি ডলার ওই সময়ই ফেরত এসেছে। আর ফিলিপাইনে যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে প্রায় দেড় কোটি ডলার ফেরত এলেও ৬ কোটি ৬০ লাখ ডলার ফেরত পাওয়া যায়নি। বাকি ছয় কোটি ৬০ লাখ ডলার অনাদায়ী রয়েছে, যা আরসিবিসির কাছ থেকে আইনি প্রক্রিয়ায় উদ্ধারের চেষ্টা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ম অনুযায়ী, এ ধরনের ঘটনায় তিন বছরের মধ্যে মামলা না করলে তার গুরুত্ব কমে যায়।