শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড জটিলতায় ফের অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি

প্রকাশিত

ফের অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি লিখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ১০ বছর পূর্তিতে শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড দেয়ার আদেশ জারি করা হলেও বিএড স্কেল প্রাপ্ত শিক্ষকরা উচ্চতর গ্রেড পাবেন কি না তা নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো প্রথম স্পষ্টীকরণের চিঠিতে বলা হয়েছিল, ‘কোন শিক্ষক পদোন্নতি বা টাইম স্কেল বা উচ্চতর স্কেল না পেয়ে থাকলে তিনি চাকরির ১০ বছর পূর্তিতে তিনি উচ্চতর গ্রেড পাবেন’। তবে যোগদানের পর অনেক শিক্ষকই বিএড স্কেল পেয়েছেন। তাই, কেউ কেউ বলছেন বিএড স্কেল প্রাপ্ত শিক্ষকরা বিএড স্কেল পাওয়ার ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেড পাবেন। আবার কেউ কেউ বিএড স্কেলপ্রাপ্তরা উচ্চতর গ্রেড পাবেন না। এসব বিভ্রান্তি দূর করতে আর বিএড স্কেলপ্রাপ্ত শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড দেয়া নিয়ে মাঠপর্যায়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে ফের স্পষ্টীকরণ নির্দেশনা চেয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শুক্রবার (২৬ জুন) মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশিদ আমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দীর্ঘ পাঁচ বছর অপেক্ষা শেষে শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার নিরসনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী চাকরির ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেড পাবেন শিক্ষকরা। তবে, একটি মামলা চলমান থাকায় চাকরির ১৬ বছর পূর্তিতে শিক্ষকদের দ্বিতীয় উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির কিছু তা অনিশ্চিয়তা দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি বিষয়টি স্পষ্ট করে একটি চিঠি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। স্পষ্টীকরণ চিঠির প্রেক্ষিতে শিক্ষকদের ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেডের আবেদন গ্রহণের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আর তা আমলে নিয়ে শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেডের আবেদন গ্রহণ শুরু করেছিল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। তবে, শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তা এবং শিক্ষকদের মধ্যে কিছু বিভ্রান্তি ছড়িয়ে। নানা পর্যায়ের কর্মকর্তারা এবং সাধারণ শিক্ষকরা অর্থ মন্ত্রণালয়ের চিঠি বিভিন্ন রকম ব্যাখ্যা দিচ্ছেন। ফলে যোগ্য শিক্ষকদের ঘুম হারাম হয়ে যাচ্ছে। দুশ্চিন্তায় সময় পার করছেন শিক্ষকরা।

শিক্ষকরা বলেন,অর্থ মন্ত্রণালয়ের দেয়া চিঠির বিভিন্ন রকম ব্যাখ্যা আমরা শুনতে পারছি কেউ কেউ বলছেন এমপিওভুক্তির তারিখ থেকে ১০ বছর হলেই উচ্চতর স্কেল পাবেন। কোন কোন কর্মকর্তারা বলছেন বিএড স্কেল পাওয়ার তারিখ থেকে ১০ বছর হলে তারা উচ্চতর গ্রেড পাবেন। আবার অনেকের মতে বিএড স্কেল পেলে শিক্ষক আপগ্রেডেড হয়েছেন, তাই তিনি ১ম উচ্চতর গ্রেড পাবেন না। দীর্ঘ পাঁচ বছর অপেক্ষা শেষে এখন আমরা উচ্চতর গ্রেড পাওয়ার আবেদন করতে পারবো। কিন্তু আমরা বিভ্রান্ত কারা আবেদন করব কার আবেদন করব না। তাদের আবেদন গ্রহণ করা হবে তাদের আবেদন গ্রহণ করা হবে না।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশিদ আমিন বলেন, শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কিছু বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। যেগুলো আমাদের নজরে এসেছে। যেহেতু বিষয়টি শিক্ষকদের আর্থিক সুবিধার সাথে সম্পৃক্ত তাই এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সুস্পষ্ট নির্দেশনা প্রয়োজন। তাই আমরা এ বিষয়ে স্পষ্টীকরণ চেয়ে গত সপ্তাহের শেষের দিকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে চিঠি পাঠিয়েছি। অর্থ মন্ত্রণালয় ফের স্পষ্টীকরণ দেবে। সে অনুযায়ী শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড দেয়ার কার্যক্রম শুরু করা হবে।