সরকারি সিলযুক্ত ২১বস্তা চাল ও দেড় হাজার খালি বস্তা উদ্ধার

প্রকাশিত
রানা সাত্তারঃচট্টগ্রামের ঈদগাঁ ঝর্নাপাড়া এলাকার একটি গুদাম থেকে সরকারি চালসহ আরাফাত মোস্তফা নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার (৮ এপ্রিল) বিকালে ঝর্নাপাড়া এলাকার ফারুক ট্রেডিং নামে এক আড়তদারের গুদাম থেকে ২১ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়।
আজ দুপুরে ডবলমুরিং থানার ঈদগাহ কাঁচা রাস্তার মুনমুন কমিউনিটি সেন্টারের গলির ভিতরে বিসিক এলাকায় করোনা সেচেতনতার ক্যাম্পিংয়ে গিয়ে পুলিশের একটি চালের গুদাম সন্দেহ হয়।সাথে সাথে মেট্রোপলিটন পুলিশের পশ্চিম বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার শ্রীমা চাকমার নেতৃত্বে গোডাউনটিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।
এ সময় ফারুকের গোডাউন থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিক্রয় নিষিদ্ধ ২১ বস্তা সরকারি চাল এবং আরো প্রায় ১৫শ’ সরকারি চালের খালি বস্তা। অর্থাৎ এসব বস্তা আগই খালি করে সরকারি চাল সরিয়ে ফেলেছে।
সহকারী পুলিশ কমিশনার শ্রীমা চাকমা জানান, অবৈধ পথে সরকারি চাল সংগ্রহ করে খোলা বাজারে এসব চাল বাড়তি দামে বিক্রি করছিলেন এই ব্যাবসায়ী। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।এই চালের উৎস কোথা থেকে তা আমরা অচিরেই বের করবো।
তিনি আরো জানান, খাদ্য অধিদপ্তেরর সিলযুক্ত বস্তা থেকে সাধারণ বস্তায় ঢোকানোর সময় হাতেনাতে ধরা হয়। এ সময় ওই গুদাম থেকে ২১ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়। প্রতিটি বস্তায় ৩০ কেজি করে চাল রয়েছে।
পুলিশ পরিদর্শক জহির হোসেন বলেন, এছাড়া ওই গুদাম থেকে সরকারি সিলযুক্ত দেড় হাজার খালি বস্তা উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে আরাফাত মোস্তফা নামে ফারুক ট্রেডিংয়ের এক কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়।বাকি খালি বস্তা দেখে বুঝা যায় তারা সারা বছর সরকারী চাল সংগ্রহের কাজে লিপ্ত থাকে।