সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন শিগগিরই জমা দেয়া হবে-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত

স্টাফ রিপোর্টার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর-রুনি হত্যাকাে র তদন্ত করছে। হত্যার রহস্য উদঘাটনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো ব্যর্থতা নেই। তদন্তের দায়িত্বে থাকা র‌্যাব শিগগির আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে। গতকাল রোববার সচিবালয়ে মহান ২১ ফেব্রুয়ারি আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মন্ত্রী। সাগর-রুনি হত্যাকাে র রহস্য জানতে আর কতদিন অপেক্ষা করতে হবে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, হাইকোর্টের দিক-নির্দেশনা অনুযায়ী র‌্যাব তদন্ত করছে। তারা ডিএনএ নিয়ে কাজ করছে। শিগগিরই তারা হত্যা রহস্য আলোকিত করতে পারবে। শিগগিরিটা কবে- জানতে চাইলে মন্ত্রী আরো বলেন, শিগগির হবে। এরপরও এটা অনেক কিছুই।
সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার কারাগারে মর্যাদা দেয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, তিনি দুইবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। একটি বড় রাজনৈতিক দলের চেয়ারপারসন। সামাজিক ও রাজনৈতিক মর্যাদা মাথায় রেখেই তাকে কারাগারে ডিভিশনের প্রাপ্ত সব সুযোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল বলেন, মহামান্য আদালত থেকে তার কারাগারে ডিভিশনের বিষয়ে একটি দিক নির্দেশনা আসছে। এটি আসার পর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এরপরও তার সামাজিক মর্যাদা ও বয়সবিবেচনায় নিয়ে সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, আদালত থেকে যেসব নির্দেশনা আসছে, সেই অনুযায়ী ইতিমধ্যে বাস্তবায়ন করা হয়েছে। যদি আরও নতুন কিছু নির্দেশনা আসে, তাহলে অবশ্যই সেগুলো করা হবে। খালেদা জিয়াকে পরিত্যক্ত স্যাঁতসেঁতে কক্ষে রাখা হয়েছে বলে বিএনপির নেতারা অভিযোগ করেছে- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি সঠিক নয়। তাকে যে কক্ষে রাখা হয়েছে সেটি আগে থেকেই সংস্কার করে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেয়া হয়েছে।
২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের নিরাপত্তা বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ২০ ফেব্রুয়ারির রাত থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ব্যাপকনিরাপত্তা থাকবে। শহীদ মিনার, টিএসসি, শাহবাগ, নীলক্ষেত সিসিটিভির আওতায় নিয়ে আসা হবে। তিনি বলেন, শহীদ মিনার এলাকায় বিশেষ স্টিকারযুক্ত গাড়ি ছাড়া অন্যকোনো গাড়ি প্রবেশ করতে পারবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ টহল থাকবে। গোটা শহীদ মিনার ও আশপাশের এলাকা ২৫০ জন র‌্যাব সদস্যসহ গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত থাকবে। বৈঠকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন, আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারি, অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাসহ গোয়েন্দা সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।