সেনবাগে প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার।

প্রকাশিত

মোঃ ফখর উদ্দিন,নোয়াখালী প্রতিনিধি:
নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার নবীপুর ইউপির নলদিয়ায় আলোচিত কিশোরী নাজমা আক্তার চুমকি(১৪) ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী বৃদ্ধ আবুল কাসেম (৬০)কে
গ্রেফতার করেছে সেনবাগ থানা পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে সেনবাগ থানার এস আই সহিদুল ইসলাম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে উপজেলার নবীপুর বাজার থেকে গ্রেফতার করে। গত ৩০ জুন ভিকটিমের
পিতা রিক্সাচালক রুহুল আমিন আবুল কাসেম সহ ৩ জন কে আসামী করে সেনবাগ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে
মামলা (নং ২৬ ‘তারিখ ৩০ জুন ২০১৮ ইং) দায়ের করেন। মামলার পর থেকে অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে।স্হানীয় একাধিক সূত্র জানান, এরশাদ সরকারের আমলে প্রতিষ্ঠিত নলদিয়া গুচ্ছ গ্রামে দীঘির পূর্বপাড়ে পনেরটি গরীব ও অসহায় পরিবার বসবাস করছে। রিক্সাচালক রুহুল
আমিন ১ পুত্র,৩ কন্যা ও স্ত্রীকে নিয়ে কোন রকম জীবিকা নির্বাহ করছে। এর মধ্যে কিছু দিন আগে ছেলেটি সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যায়। একটি মেয়ে প্রতিবন্ধী। অভাব অনটনের সংসার। কিশোরী কুসুম সুন্দর চেহারার কারণে পাশের বাড়ীর আবুল কাসেমের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। বায়না ধরে কৌশলে তার বসতবাড়ীতে টুকটাক কাজ করতে রাজি করায় পরিবারকে।
কিশোরী কুসুম কে নানা প্রলোভনে বৃদ্ধ কাসেম পাশবিক নির্যাতন চালাতো। এভাবে কয়েক মাস যেতে না যেতেই ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে কুসুম। তার শারীরিক পরিবর্তনে তার মা মনোয়ারা বেগম বিষয়টি আঁচ করে জিজ্ঞাসাবাদে কাসেমের বিষয়টি নিশ্চিন হন। এরপর পুরো এলাকায় বৃদ্ধ কাসেমের জঘন্য মানসিকতার ঘটনাটি
জানাজানি হলে ধিক্কার শুরু হয়। গত ২৬ জুলাই এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা ভিকটিম ও ঘটনার নায়ক কাসেমকে নিয়ে দাগনভূঁঞার একটি ক্লিনিকে গিয়ে বাচ্চাটি নষ্ট করে। ওই রাতে দাগনভূঞা থানা পুলিশ তাদেরকে আটক করে। পরে ১৫ হাজার টাকা দিয়ে ছাড়া পায় তারা। রাতে একটি সালিশ বৈঠকে কাসেম তার অপরাধ স্বীকার করলে স্হানীয়রা ৯০ হাজার টাকা জরিমানা
করে কাসেমের। রাত পেরিয়ে সকাল হলে কাসেম উল্টে যায়। এরপর অসহায় পরিবারটি আইনের আশ্রয় নেন।ভিকটিমের মাতা মনোয়ারা জানান, তিনটি মেয়েই অবিবাহিত। এর মধ্যে একটি প্রতিবন্ধী। কাসেম জঘন্য কাজ করেছে।আমি ন্যার্য বিচার চাই।
সেনবাগ থানার এসআই সহিদুল ইসলাম গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সেনবাগ থানার ওসি মঈন উদ্দিন আহমেদ
বলেন, এটি একটি জঘন্য ঘটনা। অপর দুই জনকেও আইনের আওতায় আনা হবে।