সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনা চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশিত
নোয়াখালী প্রতিনিধি:
নোয়াখালীর সেনবাগে বিনা চিকিৎসায় মনোয়ারা বেগম (৭০) নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।বৃদ্ধার সন্তান মো. দেলোয়ার ওরফে স্বপন (৩৫) এ অভিযোগ করেন। শুক্রবার রাতে নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে।গতকাল রাত সাড়ে বারোটায় উপজেলার কেশারপাড় ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রাম থেকে শ্বাসকষ্ট ও হার্টের সমস্যা নিয়ে ওই বৃদ্ধাকে সেনবাগ সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। এ সময় জরুরি বিভাগ ও হাসপাতালের ভেতরে প্রবেশ করা গেটে তালা ঝুলতে দেখে কর্তব্যরতদের ডাকাডাকি শুরু করেন বৃদ্ধার পুত্র স্বপন।এ সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জরুরি সেবা না দিয়ে ঘুম থেকে জেগে উঠে এক স্টাফ বেসরকারি কোনো ক্লিনিক থেকে ইসিজি করে নিয়ে আসতে বলেন।ততক্ষণে তার মায়ের শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে সেনবাগ অক্সিজেন ব্যাংকের হটলাইনে ফোন করলে ওই বৃদ্ধাকে রাত পৌনে একটার সময় অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হয়।পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে স্বপন তার মাকে নিয়ে শহরের সেন্ট্রাল হসপিটালে নিয়ে আসেন। এখানে ডাক্তার না থাকায় ইসিজিসহ প্রয়োজনীয় সেবা না পেয়ে রাত একটায় আবারও সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চত্বরে নিয়ে আসেন। তখন হাসপাতালের জরুরি বিভাগে না নিয়ে একজন মহিলা চিকিৎসক সিএনজিতে থাকা বৃদ্ধাকে দেখে মৃত ঘোষণা করেন। চরম অবহেলা ও চিকিৎসার অভাবে বৃদ্ধার মৃত্যুর অভিযোগ এনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তার সন্তান স্বপনসহ উপস্থিত তার স্বজনরা।
এ ব্যাপারে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. জাহানারা আরজু জানান, রাত একটায় খবর পেয়ে বৃদ্ধাকে দেখেছি তার কার্ডিয়াক ও শ্বাসকষ্ট ছিলো।মুহূর্তের মধ্যে তিনি ইহকাল ত্যাগ করেন।
আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রফিকুল ইসলাম জানান, করোনাকালীন সময়ে জরুরি বিভাগের একটি গেটে তালা ছিলো। কর্তব্যরত চিকিৎসক খবর পেয়ে রোগীকে দেখতে আসেন।
নোয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার জানান, সেনবাগ সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় সোনাইমুড়ীর ইউএইচএফপিও ডা. মইনুল ইসলামকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।