২৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে তাঁতীলীগ ও ছাত্রলীগের সাতক্ষীরার ৭ জন আটক! অস্ত্র উদ্ধার

প্রকাশিত

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি :
২৬ লাখ টাকা ছিনতায়ের অভিযোগে কমপক্ষে সাতজনকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। গতরাতে সাতক্ষীরা শহর ও কালিগঞ্জের মথুরেশপুর থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। এ সময় শহরের মুনজিতপুর এলাকা থেকে একটি অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। আটককৃতরা সবাই ছাত্রলীগ ও তাঁতীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং এদের মধ্যে একজন ছাত্রলীগ নেতা সাদিকের বড়িগার্ড বলে দাবি করতেন বলে প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে। তবে, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সাথে সাংবাদিকরা যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও কোন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা মোবাইল রিসিভ করেন নি। ধারণা করা হচ্ছে গত ৩১ অক্টোবর বিকেলে কালিগঞ্জের কাটাখালিতে বিপরীত দিক থেকে মোটর সাইকেলে এসে বিকাশ এজেন্টের শ্যামনগর শাখার ব্যবস্থাপক প্রদীপ কুমার দে, মাঠ কর্মী তামিম হোসেন ও কাস্টমার কেয়ার কর্মকর্তা মিথুন কুমার সরকারের কাছ থেকে বিকাশের ২৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির শ্যামনগরের ডিষ্ট্রিবিউটর আবু বক্কর ছিদ্দিক পহেলা নভেম্বর কালিগঞ্জ থানায় কারো নাম উলে­খ না করে দায়েরকৃত ১নং মামলার সন্দিগ্ব আসামী হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদেরকে আটক করা হয়েছে। যদিও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা কালিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন সেটা নিশ্চিত করতে পারেননি।
সাতক্ষীরা শহরের মুনজিতপুর এলাকার লোকজন জানান, ভোররাতে উষা ফার্নিচারের পাশের একটি বাড়ি থেকে আব্দুল আজিজ নামের এক যুবককে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে আটক করে সাদা পোষাকধারী লোকজন। তার ঘরের পিছন থেকে মাটি খুড়ে একটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এর আগে মুনজিতপুরের দীপ ও মুন্সিপাড়ার সাইফুলকে আটক করে সাদা পোষাকধারীরা। দীপ সাতক্ষীরার জেলা ছাত্রলীগের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতার বডিগার্ড বলে নিজে প্রচার করতেন । এরমধ্যে দীপ মুন্সিপাড়া এলাকায় বসবাসকারি সোহাগ( বাড়ি বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জের বঁাশঘাটা গ্রামে, শ্বশুর বাড়ি সাতক্ষীরার তালা উপজেরার খলিশখালি গ্রামে) হত্যা মামলার আসামী এবং সাইফুল বেআইনী অস্ত্রধারী ও তার বাড়ি কালিগঞ্জের চাম্পাফুল ইউনিয়নের সাইহাটি গ্রামের উজিরপুর ব্রীজের নীচে) বলে জানা গেছে।
এদিকে কালিগঞ্জ থেকে একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলার মথুরেশপুর এলাকা থেকে চারজনকে আটক করে সাদা পোষাকধারী লোকজন। আটককৃতরা হলো, বসন্তপুর গ্রামের আব্দুল নুর বিশ্বাসের ছেলে উপজেলা তাঁতীলীগের সভাপতি ময়নুল বিশ্বাস (৩০), একই এলাকার রফিুকল ইসলামের ছেলে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম এহসান কিরণ (২২), একই এলাকার আফসার আলীর ছেলে ছাত্রলীগ সদস্য আশিকুর রহমান (২৩) ও আজিজ আহমেদের ছেলে উপজেলা তাঁতী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুর রহমান (২৪)। আসাদুর রহমানের ভাই ইফতেখার আলম এই তথ্য নিশ্চিত করলেও বিকেলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।
জানতে চাইলে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল ইসলাম রেজা জানান ‘আমি এখন কলারোয়াতে আছি । সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে বিষয়টি সত্য কিনা জানাতে পারবো’। সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় তার কাছে ফের ফোন করা হলে তিনিও রিসিভ করেননি।
সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎ মিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিদুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিকদের কাছে এ আটক সম্পর্কে কোন তথ্য দিতে পারেননি।