টঙ্গীতে ভাঙ্গারী ব্যবসায়ীকে ছোঁরাকাঘাতে হত্যা, গ্রেফতার এক

প্রকাশিত

মৃণাল চৌধুরী সৈকত :
গত রোববার রাত ১১ টায় দত্তপাড়ার শান্তিবাগ এলাকায় ইউছুফ রানা (৪৫) নামে এক ব্যাক্তিকে ছোঁরাকাঘাতে হত্যা করেছে স্থানীয় চিহ্নিত দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় মামুন মৃধা নামের স্থানীয় এক ব্যাক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে থানা পুলিশ।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, দত্তপাড়া এলাকার মৃধা মার্কেটের এক দোকানের মালিক সোহেল নামে এক যুবক ইউছুফ রানার বোনের বাসায় একটি রুম ভাড়া নিতে চাইলে বাড়ির দায়িত্বে থাকা ইউসুফ রানা তাকে ঘর ভাড়া দিবে বলে কথা দেয়। কিছুদিন পর সোহেল বাসা বাড়া নেয়ার কথা অস্বীকার করলে দু’জনের মধ্যে এনিয়ে বিরোধ ও কথাকাটা কাটির সৃষ্টি হয়। পরে ইউসুফ রানা এব্যাপারে মার্কেটের মালিক মামুন মৃধার কাছে বিচার দেয়। রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় মামুন মৃধাসহ এলাকার লোকজন মিলে বিষয়টি মিমাংশা করে সোহেলকে এক হাজার টাকা জরিমানা করে। ওই ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে সোহেল ও তার সহযোগীরা রাত ১১ টায় দুর্বৃত্তরা ইউছুফ রানাকে পিঠে ছোঁরাকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। খবর পেয়ে টঙ্গী থানার এস আই মাহমুদসহ একদল পুলিশ ওই হাসপাতাল থেকে ইউসুফ রানার লাশ উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।
নিহত ইউছুফ রানা ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ থানার বান্দুরা গ্রামের মৃত সামছুল হকের ছেলে। সে দত্তপাড়া এলাকায় বোনের বাসায় থেকে ভাঙ্গারী ব্যবসা করতো বলে জানা গেছে।
এলঅকাবাসী আরো জানায় ভাঙ্গারী ব্যবসার পাশাপাশি নিহত ইউসুফ রানা ওই বাসায় মাদকের ব্যবসা পরিচালনা করতো। ফলে সোহেল ওই বাসা নিতে অস্বীকৃতি জানালে ইউসুফ রানা ক্ষীপ্ত হয়ে এলাকার মামুন মৃধার কাছে বিচার দেয়। ওই বিচারে সোহেলকে এক হাজার টাকা জরিমানা করায় এঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী ধারনা করছে।
টঙ্গী থানার ওসি মো. কামাল হোসেন জানান, মামুল নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। সোহেলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।
##