পাপন অসন্তুষ্ট টাইগারদের ফিটনেস নিয়ে

প্রকাশিত

ডেস্ক নিউজঃ খেলার মাঠে একজন খেলোয়াড় ভালো খেলতে হলে আদর্শ ফিটনেসের অবশ্যই প্রয়োজন আছে। তাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) টাইগারদের ফিটনেসের বিষয় বেশ তৎপর। তা ছাড়া ঘরোয়া টুর্নামেন্ট জাতীয় লিগ কড়া নাড়ছে দরজায়। আগামী ৫ অক্টোবর থেকে মাঠে গড়াবে দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের সর্ববৃহৎ আসর। তবে এ আসর শুরুর আগে ক্রিকেটারদের ফিটনেস লেভেল নিরূপণে এবার বিপ টেস্ট নেবে বিসিবি এবং এই বিপ টেস্টে একটা নির্ধারিত মানদণ্ড বেঁধে দেয়া হয়েছে।

আসন্ন জাতীয় ক্রিকেট লিগে খেলতে হলে ক্রিকেটারের ফিটনেস লেভেল থাকতে হবে আপ টু দ্য মার্ক। ফিটনেসের মান নির্ণয়ক বিপ টেস্টে যারা ১১ নম্বর পাবেন না, তারা টুর্নামেন্টে খেলতে পারবেন না। নতুন এ নিয়মে সিনিয়র ক্রিকেটারদের আপত্তি রয়েছে। কারণ তুষার ইমরানদের মতো সিনিয়র ও অভিজ্ঞরা বিপ টেস্টে ১১-এর এর কাছে পারছেন না। হঠাৎ করে ১১ মানদণ্ড নির্ধারণ করায় তারা পড়েছেন বেকায়দায়। এত অল্প সময়ে সেই মানদণ্ড ছোঁয়া কঠিন।

তবে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সিনিয়রদের নিয়ে চিন্তিত নন। তার মাথাব্যথা জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে। কারণ টাইগাররা ফিটনেসে বেশ পিছিয়ে আছে। তাই নাজমুল হাসান পাপনের কাছে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের ফিটনেস নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হেড কোচ ডমিঙ্গো। গত পরশু এ বিষয় বিসিবির বিগ বস বলেন, এখন আমাদের মূল সমস্যা যেটি দেখছি জাতীয় দলে সেটা হচ্ছে ফিটনেস। খেলোয়াড়দের ফিটনেস খুবই খারাপ। এমনকি কোচ এসে বলছে এটা কী ধরনের ফিটনেস তোমাদের খেলোয়াড়দের। এমন ফিটনেস নিয়ে তো আন্তর্জাতিক লেভেলে খেলা কঠিন। আমি দক্ষিণ আফ্রিকায় ছিলাম সেখানে তো কখনো দেখিনি। এখন হঠাৎ করে তো আর বাড়াতে পারব না। ১৩ তে যেতে পারছি না বা উপরেও উঠতে পারছি না। তাই একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, আমরা যদি নিচের থেকে খেলোয়াড়গুলো উঠে আসে সেখানে যদি আমরা লেভেলটা ঠিক না করি, এত কম রাখি তাহলে এই ৯-১০ তো আসবে জাতীয় দলে। আমাদের তো এখানে তাহলে লাভ হচ্ছে না। সে কারণে চেষ্টা করা হচ্ছে। বিসিবি সভাপতি আরো বলেন, আমরা বুঝেশুনেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ফিটনেস অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এটাতে সবারই নজর দিতে হবে। আমি মনে করি, আমাদের দলের ফিটনেস অবশ্যই উন্নতি করতে হবে।