বোয়ালমারীতে যুবলীগ নেতার উপর হামলার অভিযোগ আহত দুই

প্রকাশিত

বোয়ালমারী প্রতিনিধি – ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার ঘোষপুর ইউনিয়নের ভীমপুর বাজারে ঘোষপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের অর্থ সম্পাদক এস এম ফারুক হোসেনের নেতৃত্বে যুবলীগের দুই নেতার উপরে হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ১১ নভেম্বর সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় আহতরা হল ঘোষপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ বোরহান উদ্দীন মোল্যা ও ইউনিয়ন কৃষকলীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জনান, যুবলীগ নেতা বোরহান উদ্দীন মোল্যা ৬জন যুবলীগ কর্মীসহ যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিক উদ্যাপন উপলক্ষে জেলা যুবলীগের আহ্বানে ফরিদপুর যাওয়ার পথে ভীমপুর বাজারে উপস্থিত হয়। এসময় ঘোষপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এস এম ফারুক হোসেন ২০ থেকে ২৫ জনের একটি দল নিয়ে তাদের অনুষ্ঠানের যেতে বাধা দেয়। এসময় বাকবি-ার এক পর্যায় চেয়ারম্যান এসএম ফারুক হোসেনর নেতৃত্বে বোরহান উদ্দীনের ওপরে দেশীয় অস্ত্রো নিয়ে হামলা করে । এতে বোরহান উদ্দীন ও জাকির হোসেন মারাত্মক আহত হন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বোয়ালমারীতে প্রেরণ করে। বোয়ালমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আহত যুবলীগ নেতা বোরহান উদ্দীন জানান, ফারুক হোসেন সুবিধাবাদি রাজনীতির সাথে জড়িত। সে অতীতে বিএনপি রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। প্রতিহিংসা বসত ফারুক ও তার লোকজন আমাদের উপর হামলা করে।
এ ব্যাপারে ফরুক হোসেন বলেন, বোরহান বিএনপি করত। এখন সে যুবলীগে যোগদান করে এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করছে, আজ যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী নিয়ে আওয়ামী রাজনীতিতে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা চালালে স্থানীয়রা প্রতিরোধ করে, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হিসেবে বিষয়টি জানার জন্য আমি ভীমপুর গেলে তার লোকজন আমার উপর হামলা করে। এসময় স্থানীয়রা তাদের উপর পাল্টা আক্রমন চালায়। এ ব্যাপারে বোয়ালমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুর রহমান ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেন, হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটেছে বিকাল পর্যন্ত কোন পক্ষ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।