কক্সবাজারে অসুস্থ শাশুড়িকে দেখতে এসে মারা গেলেন জামাই

প্রকাশিত

কক্সবাজার প্রতিনিধি- অসুস্থ শাশুড়িকে দেখতে এসে ধানক্ষেতে পাতা বৈদ্যুতিক ফাঁদে স্পৃষ্ট হয়ে আয়াতুল্লাহ (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৩ নভেম্বর) সকালে কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদ ইউনিয়নের মধ্যম গজালিয়া রাজঘাট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। পরে ওই ধানক্ষেত থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
স্বজনরা জানিয়েছেন, আয়াত উল্লাহ দুই সন্তানের জনক। বাড়ি কক্সবাজার সদরের ইসলামপুর ইউনিয়নের কৈলাসেরঘোনা এলাকায়। বাবার নাম আবুল কাসেম। বিদেশ যাওয়ার জন্য ঢাকায় ডাক্তারি পরীক্ষা দিয়ে নিজ বাড়িতে না গিয়ে অসুস্থ শাশুড়িকে দেখতে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানে যাওয়ার আগেই পথে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আয়াত উল্লাহ বিদেশ যাবার প্রক্রিয়া শেষ করে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ঢাকা থেকে গাড়িতে করে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। চকরিয়া পর্যন্ত যাওয়ার পর জানতে পারেন শাশুড়ি অনেক অসুস্থ। তখন বাড়িতে ফোন দিয়ে মা ও ভাবীর মুঠোফোন বন্ধ পান। এ কারণে বুধবার ভোররাতে ইসলামাবাদের ফকিরাবাজার এলাকায় নেমে বাজারের পূর্বপাশে মধ্যম গজালিয়া গ্রামে শ্বশুর বাড়ির উদ্দেশে হাঁটা শুরু করেন।
এদিকে বন্যপ্রাণী থেকে ধান রক্ষায় অবৈধভাবে জিআই তারের মাধ্যমে বৈদ্যুতিক ফাঁদ বসায় শ্বশুরের প্রতিবেশী শাহ আলম ও তার ছেলে নুরুল আমিন। এ কারণে বিলের আইল দিয়ে হেঁটে যাবার সময় জিআই সেই ফাঁদে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান আয়াত উল্লাহ। পরে ফজরের নামাজ শেষে স্থানীয়রা তার মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।
ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই মো. আসাদুজ্জামান জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্টের পর ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে কৃষকের পাতা বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে তার মত্যু হয়েছে। মরদেহের পাশে বিভিন্ন ধরনের ফলের প্যাকেট পড়ে ছিল।