সখীপুরে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ

প্রকাশিত

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি-
টাঙ্গাইলের সখীপুরে নাজমুল হাসান (২৫) নামের এক বখাটের বিরুদ্ধে অষ্টম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে (১৪) অপহরণের পর দুইদিন দুইরাত আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় স্কুলছাত্রীর বাবা ধর্ষক নাজমুল হাসানকে একমাত্র আসামি করে সখীপুর থানায় অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে মুঠোফোনের সূত্র ধরে অভিযুক্ত ধর্ষকের আত্মীয় উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের পাথারপুর গ্রামের আরিফ বিএসসি’র বাড়ি থেকে অপহৃতা স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও ধর্ষক নাজমুল হাসানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে সখীপুর পিএম বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই স্কুল ছাত্রী তার নিজ বাড়ি শোলাপ্রতিমা থেকে ছোট ভাইকে পিএসসি পরীক্ষা দিতে সখীপুর পাইলট বালক স্কুল এন্ড কলেজ কেন্দ্রে নিয়ে যায়। ফেরার পথে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা সখীপুর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের ওসমান গণির ছেলে নাজমুল হাসান জোরপূর্বক অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই স্কুল ছাত্রীকে একটি সিএনজিতে উঠিয়ে নিয়ে অপহরণ করে। এরপর থেকে দুইদিন দুইরাত নাজমুল হাসানের আত্মীয় উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের পাথারপুর গ্রামের আরিফ বিএসসি’র বাড়িতে আটকে রেখে ও নেশা জাতীয় খাবার খাওয়ানোর মাধ্যমে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। তবে অপহরণের ওইদিন রাতেই ছাত্রীর বাবা সখীপুর থানায় নাজমুল হাসানের বিরুদ্ধে মেয়েকে অপহরণের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেন।
মামলার বাদী ও ছাত্রীর বাবা ধর্ষক নাজমুলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে সখীপুর থানার ওসি (তদন্ত) এএইচএম লুৎফুল কবির জানান, মুঠোফোনের সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের পাথারপুর গ্রামের আরিফ বিএসসি’র বাড়ি থেকে অপহৃতা স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার ও ধর্ষক নাজমুল হাসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শুক্রবার সকালে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।