কুমিল্লা কোটবাড়ি ল্যারোটরি স্কুল হোস্টেল থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার।

প্রকাশিত

কুমিল্লা প্রতিনিধি :

কুমিল্লা মহানগরীর কোটবাড়ি ল্যাবরোটরি স্কুলে হোষ্টেল ভবন থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে সদর দক্ষিণ থানা পুলিশ।

নিহত সাহাদাৎ হোসেন সাব্বির (১০) জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা যশপুর গ্রামের কৃষক হুমায়ুন কবিরের ছোট ছেলে।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে মহানগরীর ২৪নং ওয়ার্ডের কোটবাড়ি ল্যাবরোটরি স্কুলে হোষ্টেল ভবন থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে সদর দক্ষিণ থানা পুলিশ।

ঘটনা সুত্রে জানা যায়, কুমিল্লা মহানগরীর ২৪নং ওয়ার্ডের কোটবাড়ি ল্যাবরোটরি স্কুলের খেলতে গিয়ে হোস্টেল ভবনের পেছনে ছাদের বেলকনির বাইরে পাইপের সাথে ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায় সহপাঠীরা। তবে এসময় হোষ্টেল সুপার মোজাম্মেল হক হোষ্টেলে ছিলেন না বলে জানা গেছে। নিহতের আপন বড় ভাই একই স্কুলের শিক্ষার্থী ৯ম শ্রেণীর ছাত্র শাখাওয়াত হেসেন সৈকত পরিক্ষা কেন্দ্রে ছিলো বলে জানায় সে। ঘটনার দিন সবার সাথে সকালেও হাসিখুশি কথা বলেছে বলে জানায় হোস্টেলের শিক্ষার্থীরা। খবর পেয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দেয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয় ফাঁড়ী পুলিশ। সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পিএসসি পরিক্ষা শেষে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তির প্রস্তুতি নেয়া সাহাদাৎ হোসেন সাব্বিরের মৃত্যু হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে চলছে নানান কানাঘুঁষা। ঘটনার সময় হোষ্টেল কক্ষে কেউ ছিলো কি না সে বিষয়ে উপস্হিত কেউ কিছু বলতে পারেনি। হোষ্টেল সুপার সহ সকলেই সাব্বিরকে আদর করতেন বলে জানায় সহপাঠীরা। ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে মা বাবা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড এ নিয়ে এলাকায় নানা কানাঘুঁষা থাকলেও, আসল রহস্য উদ্ধারে কাজ করছে পুলিশ।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে শেষে কুমিল্লা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তানভীর সালেহীন ইমন জানান, তদন্ত শেষ হলে এবং ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পরই আসল ঘটনা জানা যাবে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানা কোন মামলা দায়ের করা হয় নি বলে জানান সদর দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম।