ভাষা শহীদদের প্রতি ঐতিহ্যবাহী টঙ্গী প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন

প্রকাশিত

শেখ রাজীব হাসান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদ আহসান উল্লাহ্‌ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতাল মাঠ প্রাঙ্গনে নির্মিত টঙ্গীস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে শুক্রবার রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথমে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং এর পরপরই টঙ্গী প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এসময় বাজানো হয় কালজয়ী গান ‘আমার ভায়ের রক্তের রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি…’

পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে তারা সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। টঙ্গী প্রেস ক্লাবের সভাপতি এম এ হায়দার সরকার ক্লাবের সকল সদস্য ও সিনিয়র নেতাদের সাথে নিয়ে চ্যানেল ফোরের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে আরেকবার পুস্পস্তবক অর্পণ করেন।

এসময় টঙ্গী প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াজউদ্দিন, নাসির উদ্দিন বুলবুল, মাহাবুব আলম, মাসুদ সরকার, কাজী রফিক, রেজাউল কবির রাজীব, শেখ রাজীব হাসান, বসির আলম মাল,  জাহাঙ্গীর আকন্দ, আল- আমিন হোসেন, ফরিদ আহমেদ নয়ন, দুর্জয় রহমান, শাহাজালাল, জয়নাল আহম্মেদ প্রমুখ। এসময় সংসদ সদস্য, কূটনৈতিক, সাংবাদিক, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, অফিসারস ক্লাব,  থানা আওয়ামীলীগ,, মহিলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, টঙ্গী সরকারী কলেজ ছাত্রলীগ, টঙ্গী বন্ধু সোসাইটিসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা পর্যায়ক্রমে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৫২ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারি তৎকালীন পাকিস্তান সরকার বাংলা ভাষাকে জাতীয় ভাষা হিসাবে অস্বীকার করে এবং পাকিস্তানের একমাত্র সরকারি ভাষা হিসেবে উর্দুকে চাপিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে শিক্ষার্থী ও ঢাকার সাধারণ মানুষ রাজপথে নেমে আসে। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলাকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষার দাবিতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একটি মিছিল বের হয়। এসময় পুলিশের গুলিতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ আরও কয়েকজন নিহত হন। এরই ধারাবাহিকতায় শহীদদের স্মৃতি ধরে রাখার লক্ষ্যে বিশ্ব ব্যাপী ২১ ফেব্রুয়ারিকে শহীদ দিবস হিসেবে পালন করা হয়।