টঙ্গীতে বাবুস্ সালাম মাদ্রাসার শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগ

প্রকাশিত

শেখ রাজীব হাসান,বিশেষ প্রতিনিধি: টঙ্গীতে বাবুস্ সালাম মাদ্রাসার শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওই প্রতিষ্ঠানেরই ১৭ বছরের এক কিশোরকে বলাৎকারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার রাতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওই নির্যাতিত কিশোরের মা টঙ্গী পূর্ব থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম আনোয়ার হোসেন (৩৩)। তিনি বাবুস্ সালাম মাদ্রাসা টঙ্গী এর প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মাদ্রার পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের রান্নায় সহযোগিতা করে বাবুস্ সালাম মাদ্রাসায় আরবি শিখতো সে। প্রায় কয়েক সপ্তাহ ধরেই এমন নির্যাতন সয্য করে আসছিলো ছেলেটি। মঙ্গলবারব দুপুরে ওই শিক্ষক কিশোরকে মাদ্রাসার অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে বলাৎকার করেন এবং ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেন ও মারধর করেন। ঘটনার এক পর্যায়ে নির্যাতিত কিশোর ভয় পেয়ে মাদ্রাসায় থাকা (ইদুরের বিষ) পান করে। এতে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে সহপাঠীরা তাকে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢামেকে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিলে রোগীর অবস্থা বিবেচনা করে আব্দুল্লাহপুর সুইচ গেইট সংলগ্ন উত্তরা লেক ভিউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আইসিইউতে চিকিতসাধীন রয়েছে। কিশোরের মা আসমা আক্তার জানান, আমার ছেলের এমন অবস্থা করে মাদ্রাসার হুজুর উল্টো আমাদের নামে অভিযোগ করার চেষ্টা করছে। এ ঘটনাটি সংবাদ মাধ্যমে জানাজানি হওয়ার পরপরই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গা ঢাকা দিয়েছেন। সরেজমিনে গেলে মাদ্রাসার আশপাশের অনেকেই বলেন এ মাদ্রাসার হুজুরের বিরুদ্ধে এমন আরো অভিযোগ হয়েছিলো। এদিকে, ওই কিশোর জানিয়েছে, ‘ঘটনাটি কাউকে না জানানোর জন্য মাদ্রাসার হুজুর আমাকে ভয় দেখান। আমারে মাদ্রাসা থেইকা বাইরে আসতে দেয় নাই। অন্য ছাত্রদের দিয়া আমারে পাহারা দিয়া রাখছিল। টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি সম্পর্কে আমার বিস্তারিত জানা নেই। তবে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।